চীন-ভারত সংঘাতে রক্তাক্ত লাদাখ

Categories

দুই পক্ষের সংঘর্ষে ভারতীয় ২০ সেনা নিহত ৪৩ চীনা সেনা নিহতের দাবি দিলিস্নর, এখনো নীরব বেইজিং ১৯৭৫ সালের পর এই প্রথম প্রাণহানি ঘটল

পারমাণবিক শক্তিধর দুই প্রতিবেশী ভারত-চীনের মধ্যকার সংঘাত ও সংঘর্ষে রক্তাক্ত হয়ে উঠেছে লাদাখ। অঞ্চলটির গালওয়ান উপত্যকায় ভারত-চীন সীমান্তে এই দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ২০ ভারতীয় সেনা নিহত হয়েছে বলে দেশটির সেনাবাহিনী জানিয়েছে। মঙ্গলবার ভারতের পক্ষ থেকে প্রথমে তিন সেনা নিহত হওয়ার কথা জানানো হয়েছিল। পরে এক বিবৃতিতে তারা বলেছে, ‘সংঘর্ষে নিহত এক সেনা কর্মকর্তা ও দুই সৈনিকের সঙ্গে গুরুতর আহত আরও ১৭ সেনা মারা গেছে।’ এদিকে, এই সংঘর্ষে চীনের অন্তত ৪৩ সেনা নিহত অথবা গুরুতর আহত হয়েছে বলে সেনা সূত্রের বরাতে দাবি করেছে ভারতের কয়েকটি সংবাদমাধ্যম। তবে বেইজিংয়ের পক্ষ থেকে এ ব্যাপারে এখনো কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে দেশটির সরকারঘেঁষা ‘দ্য গেস্নাবাল টাইমস’ পাঁচজন চীনা সেনা নিহত এবং ১১ জনের আহত হওয়ার খবর দিয়েছে। সংবাদসূত্র : এনডিটিভি, এবিপি নিউজ, বিবিসি

৯৭৫ সালের পর এই প্রথম পারমাণবিক শক্তিধর দুই প্রতিবেশী চীন ও ভারতের মধ্যে প্রাণহানির মতো এমন সংঘর্ষের ঘটনা ঘটল। ১৯৬২ সালে সীমান্ত বিরোধ নিয়ে দুই দেশের মধ্যে সংক্ষিপ্ত যুদ্ধ হয়।

হিমালয় পর্বতের পশ্চিমাংশের লাদাখে গত কয়েক সপ্তাহ ধরে ভারত ও চীনের সামরিক বাহিনী পরস্পর মুখোমুখি অবস্থান নিয়ে আছে। এর আগে দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি হলেও রক্তপাতের কোনো ঘটনা ঘটেনি। এবারের সংঘর্ষের ঘটনাটি লাদাখের গালওয়ান উপত্যকায় সোমবার রাতে ঘটেছে বলে বিবৃতিতে জানিয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। দুই পক্ষের জ্যেষ্ঠ সামরিক কর্মকর্তারা বৈঠকে বসে উত্তেজনা নিরসনের চেষ্টা করেছেন বলেও জানায় তারা।

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এর প্রতিক্রিয়ায় ভারতকে একতরফা কোনো পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে সতর্ক করে ঝামেলা আর না বাড়াতে বলেছে। চীনের দাবি, ভারতীয় সেনারাই প্রথম হামলা চালিয়েছে। চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান বেইজিংয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ‘১৫ জুন ভারতীয়পক্ষ দুইবার সীমান্ত লঙ্ঘন করে উস্কানি দিয়েছে এবং চীনা সেনাদের আক্রমণ করেছে। এ থেকেই দুই সীমান্ত বাহিনীর মধ্যে সহিংস সংঘর্ষ শুরু হয়।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*